• May 29, 2022

মিউজিয়ামে ঢুকলেই ২০৭১ সালের আগামীতে পৌঁছে যাবেন দর্শকরা!

 মিউজিয়ামে ঢুকলেই ২০৭১ সালের আগামীতে পৌঁছে যাবেন দর্শকরা!

আসমান ডেস্ক : স্থাপত্যকার্যে দুবাই বরাবরই সমৃদ্ধ। সেখানে অসাধারণ স্থাপত্যের বেশ কিছু নিদর্শন রয়েছে। তাতেই এবার নতুন সংযোজন হল ‘মিউজিয়াম অফ দ্য ফিউচার’।বিশ্বের সর্বোচ্চ বিল্ডিং বুর্জ খলিফা থেকে মাত্র কয়েক মিনিটের দূরত্বেই রয়েছে ভবিষ্যতের এই জাদুঘর।মঙ্গলবারই  দুবাইতে উদ্বোধন হল এই মিউজিয়ামটির।এই মিউজিয়ামটির উদ্বোধন করেন দুবাইয়ের শাসক শেখ মহম্মদ বিন রশিদ আল-মাকতুম। তাঁরই ভবিষ্যত্‍ সম্পর্কে ধারণা, ভাবনা-চিন্তাকে সামনে রেখে তৈরি করা হয়েছে এই ভবিষ্যতের জাদুঘর।

emeAcademy-BBA
StartupPedia

মিউজিয়ামটি চালু হওয়ার পর তা দেখতে ওই অঞ্চলে ভিড় জমান শহরবাসী। তখন রুপোলি বিল্ডিংয়ের গায়ে বেগুনি রঙের লেজার লাইট ফেলা হয়। নীলচে রুপোলি সেই আভায় ‘মিউজিয়াম অফ দ্য ফিউচার’-এর দিক থেকে চোখ যেন ফেরানোই যাচ্ছিল না। মিউজিয়াম বিল্ডিংটির কাঠামো এতটাই অপূর্ব যে কেউ কেউ বলছেন এটাই পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর বিল্ডিং।মিউজিয়াম বিল্ডিংটি উপবৃতাকার। সাততলা এই ফাঁপা বিল্ডিংটি রুপোর রঙে সাজানো হয়েছে। তার উপর যখন বাইরে থেকে নানা আলোর কারুকার্য করা হচ্ছে তখন তা দেখতে লাগছে মোহময়ী। গোটা বিল্ডিংয়ের গায়ে রয়েছে আরবি ভাষায় লেখা কিছু কথা।

emeAcademy-BHM

তবে কী আছে এই ভবিষ্যতের জাদুঘরের অন্দরে!নির্মাতারা অবশ্য এখনও তা খোলসা করে কিছুই বলেননি। তবে সূত্র মারফত খবর, ডিজাইন এবং প্রযুক্তির নিত্যনতুন আবিষ্কার চোখের সামনে তুলে ধরবে এই মিউজিয়াম। এখানে ২০৭১ সালের আগামীতে ঘুরে আসতে পারবেন দর্শকরা।

Hospitech

editor

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related post

Shares